রবিবার, ২১ Jul ২০২৪, ০৬:০৬ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
চট্টগ্রামস্থ ছাগলনাইয়া সমিতির আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বিশেষ অভিযানে ৬ গ্যাংয়ের ৩৩ জন আটক, দেশী অস্ত্র উদ্ধার ভালো আছেন খালেদা জিয়া ঈদকে ঘিরে জাল নোট গছিয়ে দিত ওরা কুতুব‌দিয়ায় নতুন জামা পেল ১৩৫ এতিম ছাত্র-ছাত্রী মানিকছড়িতে গণ ইফতার মাহফিল সীতাকুণ্ডে লরি চাপায় পথচারী যুবক নিহত সীতাকুণ্ডে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু রামগড়ে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে বিজিবির পুরস্কার ও সনদ বিতরন লাইসেন্স বিহীন ফিলিং স্টেশন স্থাপন করে কার্ভাড ভ্যানে চলছে অবৈধ গ্যাস বিক্রি কাপ্তাই ব্লাড ব্যাংকের উদ্যোগে জনসচেতনতামূলক বিশেষ ক্যাম্পেইন জিম্মি নাবিকদের উদ্ধারে জাহাজের মালিকপক্ষের নতুন ঘোষণা
শান্তি, সম্প্রীতি, উন্নয়নে পাহাড়ে গণতান্ত্রিক অংশগ্রহণের প্রত্যাশা- ড. মাহফুজ পারভেজ

শান্তি, সম্প্রীতি, উন্নয়নে পাহাড়ে গণতান্ত্রিক অংশগ্রহণের প্রত্যাশা- ড. মাহফুজ পারভেজ

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির ২৬ বছর পূর্তির প্রাক্কালে সেখানে বিরাজমান শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়নের পালে গণতান্ত্রিক অংশগ্রহণের হাওয়া লেগেছে। ভোটকে সামনে রেখে রাজনৈতিক প্রত্যাশা জেগেছে মানুষের মধ্যে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সমগ্র পাহাড়ে বইছে সরগরম নির্বাচনী আমেজে।

উল্লেখ্য, দীর্ঘ সংঘাতের অবসানে শান্তি চুক্তি চূড়ান্ত হয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে ২ ডিসেম্বর ১৯৯৭ সালে স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তিটি পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতিদের স্বতন্ত্র জাতিসত্তা এবং বিশেষ মর্যাদাকে স্বীকৃতি দেয় এবং পার্বত্য অঞ্চলের তিনটি জেলার স্থানীয় সরকার পরিষদের সমন্বয়ে একটি আঞ্চলিক পরিষদ প্রতিষ্ঠা করে।

শান্তুিচুক্তির পর দুর্গম ও অবহেলিত পাহাড়ে সূচিত হয় নবযুগের। ভ্রাতৃঘাতী লড়াইয়ের পর দেখা পাওয়া যায় শান্তি ও সম্প্রীতির। মানবিক ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের ছোঁয়ায় আলোকিত হয় পার্বত্যভূমি।

বিচ্ছিন্নতাবাদী সশস্ত্র গ্রুপগুলো চলে আসে মূলস্রোতের রাজনীতিতে। তরুণ ও যুব প্রজন্ম শিক্ষা ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আত্মবিকাশের পথ খুঁজে পায়। কোটা ও অন্যবিধ সুবিধার কারণে উচ্চশিক্ষা ও চাকরির ক্ষেত্রে নিজেদের ন্যায্য অধিকার ও অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতেও সক্ষম হয় পাহাড়ের মানুষ।

শান্তুিচুক্তি-পরবর্তী বহুমাত্রিক অগ্রগতির প্রভাবে পার্বত্য চট্টগ্রামের মাটি ও মানুষের উপর যে ইতিবাচক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে, তার প্রভাব লক্ষ্য করা গেছে সেখানকার রাজনৈতিক সচেতনতায়, অংশগ্রহণে এবং গতিশীলতায়।

সাংবিধানিক গণতান্ত্রিক রাজনীতির আলোকে প্রতিটি নাগরিক নিয়মতান্ত্রিকতার পথে সামনের দিকে এগিয়ে চলতে দৃঢ় প্রত্যয়ী হয়ে কাজ করছেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের উষ্ণতা পরিলক্ষিত হচ্ছে পার্বত্য জনপদে।

পার্বত্য চট্টগ্রামের মূলকেন্দ্র রাঙামাটির নির্বাচনী পরিস্থিতিতে তেমনটিই দেখা গেছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৯৯নং পার্বত্য রাঙামাটি আসনে অংশগ্রহণের লক্ষ্যে নৌকা প্রতীকে লড়ার জন্য আওয়ামী লীগ থেকে সর্বমোট ১১টি ফরম মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন আগ্রহী প্রার্থীরা। তফসিল অনুযায়ী অন্যান্য দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরাও নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

খাগড়াছড়ি জেলার মহালছড়ি বাজারে বুধবার (২২ নভেম্বর) বিকালের জমজমাট ভিড়ে কানে আসে নির্বাচনী আলাপ-আলোচনা। শহরের চেয়ে পাহাড়ে শীতের আমেজ আগে চলে আসার অনুভূতিও টের পাওয়া গেলো।

সন্নিকটস্থ পাহাড়ের শরীরে দেখা গেলো শীতের আগমনী কুয়াশার প্রলেপ। সবকিছু ছাপিয়ে সেখনকার মানুষের কথাবার্তার মধ্যে বিরাজ করছিল নির্বাচনী উত্তাপ।

‘আমাদের কাছে নির্বাচন অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। জাতীয় ইস্যুর পাশাপাশি পাহাড়ে বিরাজমান বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের জন্য নির্বাচনের মাধ্যমে যোগ্য নেতৃত্ব তৈরি হওয়া প্রয়োজন, যারা পাহাড়ের জন্য আন্তরিকভাবে কাজ করবেন’, জানালেন প্রসূন ত্রিপুরা।

তার সাথে কথা হয় একটি টি স্টলের সামনে। মধ্যবয়সী লোকটি বেঞ্চে বসেছিলেন। খোলামেলা আলাপে জানালেন নির্বাচন নিয়ে তার মনোভাব। বললেন, ‘যোগ্য নেতৃত্ব পাহাড়ে শান্তি ও সম্প্রীতির জন্য সহায়ক হবে। তারা মানুষের জন্য কাজ করতে পারবে। আমরা তেমন কাউকেই ভোট দেবো।’

বাজারের নানা প্রান্তে নির্বাচনী প্রচারণার ছাপ দেখা গেলো। সম্ভাব্য প্রার্থী ও তাদের সমর্থনকারীদের পোস্টার, ফেস্টুন শোভা পাচ্ছে। জটলা ও আড্ডায় সমবেত মানুষের আলোচনায় স্থান পাচ্ছে নির্বাচন প্রসঙ্গ।

প্রধানত নির্বাচন নিয়েই কথা বললেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সুশীল চাকমা। ছুটিতে বাড়িতে অবস্থানকারী এই শিক্ষার্থীর সঙ্গে দেখা হয় ‘এপিবিএন’ কমপ্লেক্সের পাশের সড়কে। তার মতে, ‘তরুণরা এবারের নির্বাচনে অনেক বেশি উৎসাহী।

অনেকেই জীবনে প্রথম ভোটার হয়েছে। তাদের সংখ্যাই বেশি। তারা চায় এমন নেতা নির্বাচিত হোক, যিনি মানুষের সমস্যা সমাধানে যোগ্য ও উদ্যমী হবেন।’ তার মতে, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামের কল্যাণের কথা বিবেচনা করে দলগুলোর উচিত সঠিক ব্যাক্তিকে প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেওয়া।’

সূর্যাস্তের আবছা আলোয় শীতের পরশমাখা পার্বত্য প্রকৃতি ছেড়ে চলে আসার সময় কানে বাজছিল মানুষের মধ্যে নির্বাচন নিয়ে সঞ্চারিত কথাগুলো। আর তাদের প্রত্যাশার ধ্বনি-প্রতিধ্বনিগুলো।

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির ২৬ বছর পূর্তি কালে যখন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন, তখন তা পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষের মধ্যে আশার নতুন প্রেরণা হয়ে দেখা দিয়েছে।

লেখক: ড. মাহফুজ পারভেজ, প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT