বুধবার, ২৪ Jul ২০২৪, ০৯:৩৫ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
চট্টগ্রামস্থ ছাগলনাইয়া সমিতির আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বিশেষ অভিযানে ৬ গ্যাংয়ের ৩৩ জন আটক, দেশী অস্ত্র উদ্ধার ভালো আছেন খালেদা জিয়া ঈদকে ঘিরে জাল নোট গছিয়ে দিত ওরা কুতুব‌দিয়ায় নতুন জামা পেল ১৩৫ এতিম ছাত্র-ছাত্রী মানিকছড়িতে গণ ইফতার মাহফিল সীতাকুণ্ডে লরি চাপায় পথচারী যুবক নিহত সীতাকুণ্ডে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু রামগড়ে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে বিজিবির পুরস্কার ও সনদ বিতরন লাইসেন্স বিহীন ফিলিং স্টেশন স্থাপন করে কার্ভাড ভ্যানে চলছে অবৈধ গ্যাস বিক্রি কাপ্তাই ব্লাড ব্যাংকের উদ্যোগে জনসচেতনতামূলক বিশেষ ক্যাম্পেইন জিম্মি নাবিকদের উদ্ধারে জাহাজের মালিকপক্ষের নতুন ঘোষণা
লামায় ১৭ হাজার ৯৮৬ শিশুকে খাওয়ানো হচ্ছে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল

লামায় ১৭ হাজার ৯৮৬ শিশুকে খাওয়ানো হচ্ছে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল

মো. নুরুল করিম আরমান, লামাঃ সারা দেশের ন্যয় বান্দরবানের লামা উপজেলায়ও শিশুদেরকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে। শনিবার সকাল ৮টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স প্রাঙ্গনে শিশুকে ক্যাপসুল খাওয়ানের মধ্য দিয়ে কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন- উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. উইলিয়াম লুসাই।

এ সময় উপজেলা ডা. মাজেদুর রহহমান, ডা. মাকসুদা বেগম, মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট (ইপিআই) রুপন চৌধুরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত পূর্ব নির্ধারিত কেন্দ্রের পাশাপাশি ভ্রাম্যমান শিশুদের জন্য বাস স্টেশন ও নৌঘাটেও এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর ব্যবস্থা করা হয়।

এবারে উপজেলার ১৭ হাজার ৯৮৬ জন শিশুকে ভিটামিন ‘এ‘ ক্যাপসুল খাওয়ানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে কর্তৃপক্ষ। মেডিকেল টেকনোলজিষ্ট (ইপিআই) রুপন চৌধুরী জানান, একটি পৌরসভাসহ উপজেলার সাতটি ইউনিয়ন কমিউনিটি ক্লিনিকসহ নির্ধারিত ১৫৪টি স্থানে একযোগে ক্যাপসুল খাওয়ানো হচ্ছে।

এর মধ্যে গজালিয়া ইউনিয়নের দুর্গমে ১টি ও সরই ইউনিয়নের দুর্গমে ১টি কেন্দ্র স্থাপন করা করা হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে ২জন করে সর্বমোট ৩০৮জন স্বাস্থ্য কর্মী ও স্বেচ্চাসেবী কাজ করেছেন। ছয় মাস থেকে ১১ মাস বয়সী ২ হাজার ২১২ জন শিশুকে একটি করে নীল রংয়ের ক্যাপসুল ও ১২ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী ১৫ হাজার ৭৭৪ জন শিশুকে একটি করে লাল রংয়ের ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হয়েছে।

লামা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. উইলিয়াম লুসাই বলেন, ভিটামিন ‘এ’ দেহের স্বাভাবিক বৃদ্ধিতে সহায়তা করে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শিশুমৃত্যুর ঝুঁকি কমায়।

ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়া থেকে দুর্গম পাহাড়ি এলাকার একটি শিশুও যাতে বাদ না পড়ে, সে ব্যবস্থার পাশাপাশি সার্বক্ষনিক মনিটরিং করছি। আশা করি কোন শিশু এ ক্যাম্পেইন থেকে বাদ পড়বেনা।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT