বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul ২০২৪, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন

        English
শিরোনাম :
চট্টগ্রামস্থ ছাগলনাইয়া সমিতির আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বিশেষ অভিযানে ৬ গ্যাংয়ের ৩৩ জন আটক, দেশী অস্ত্র উদ্ধার ভালো আছেন খালেদা জিয়া ঈদকে ঘিরে জাল নোট গছিয়ে দিত ওরা কুতুব‌দিয়ায় নতুন জামা পেল ১৩৫ এতিম ছাত্র-ছাত্রী মানিকছড়িতে গণ ইফতার মাহফিল সীতাকুণ্ডে লরি চাপায় পথচারী যুবক নিহত সীতাকুণ্ডে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু রামগড়ে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে বিজিবির পুরস্কার ও সনদ বিতরন লাইসেন্স বিহীন ফিলিং স্টেশন স্থাপন করে কার্ভাড ভ্যানে চলছে অবৈধ গ্যাস বিক্রি কাপ্তাই ব্লাড ব্যাংকের উদ্যোগে জনসচেতনতামূলক বিশেষ ক্যাম্পেইন জিম্মি নাবিকদের উদ্ধারে জাহাজের মালিকপক্ষের নতুন ঘোষণা
লাইটার জাহাজের সিরিয়াল নিয়ে বিরোধ: বিফলে যাচ্ছে সব উদ্যোগই

লাইটার জাহাজের সিরিয়াল নিয়ে বিরোধ: বিফলে যাচ্ছে সব উদ্যোগই

মাদার ভেসেল থেকে পণ্য পরিবহনের জন্য লাইটার জাহাজের সিরিয়াল নিয়ে এক মাস ধরে বিরোধ চলছে তিন সংগঠনের মধ্যে। এ বিরোধ একপর্যায়ে মারামারিতে গড়ায়। এতে বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে। বিরোধ নিরসনে সরকারি সংস্থা নৌ বাণিজ্য দপ্তর সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করলেও এখনো কোনো সুরাহা হয়নি।

লাইটার জাহাজগুলো চট্টগ্রাম বন্দরে আসা বিদেশি জাহাজ থেকে আমদানি পণ্য খালাস ও দেশের বিভিন্ন নৌ-রুটে পরিবহন করে থাকে। এ কাজে বহির্নোঙরে সিরিয়াল নিয়ন্ত্রণ করত লাইটার জাহাজ মালিকদের তিনটি সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট সেল (ডব্লিউটিসি)। ২০০৩ সাল থেকেই এই সেলের মাধ্যমে সিরিয়াল নিয়ে আসছে লাইটার জাহাজগুলো। কিন্তু গত ১৯ ডিসেম্বর ডব্লিউটিসি থেকে বের হয়ে যায় লাইটার মালিকদের তিন সংগঠনের একটি ইনল্যান্ড ভেসেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব চিটাগাং (আইভোয়াক)। পরদিন থেকে তারা আলাদা সিরিয়াল দিতে থাকে। আর এ নিয়েই অন্য দুই সংগঠন বাংলাদেশ কার্গো ভেসেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিসিভোয়াক) ও  কোস্টাল শিপ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের (কোয়াব) সঙ্গে বিরোধ শুরু হয় আইভোয়াকের।

চলমান বিরোধ মেটাতে গত ৩১ ডিসেম্বর নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমোডর মোহাম্মদ মাকসুদ আলমের সভাপতিত্বে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় নৌ-বাণিজ্য দপ্তর, চট্টগ্রামের প্রিন্সিপাল অফিসার ক্যাপ্টেন সাব্বির মাহমুদকে আহ্বায়ক করে দুটি কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়। ছয় সদস্যবিশিষ্ট কমিটি বিরোধে লিপ্ত তিন সংগঠনের মনোনীত তিনজন আইনজীবী নিয়ে একটি টেকনিক্যাল কমিটিও গঠন করে দেয়। বিরোধ নিরসনে এর আগে গত ২১ ডিসেম্বর নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমোডর মোহাম্মদ মাকসুদ আলম এক জরুরি নৌ বিজ্ঞপ্তি জারি করেন। এ ছাড়া তিনটি সংগঠন থেকে একজন করে প্রতিনিধির সমন্বয়ে নৌযান সিরিয়াল প্রদানে ‘ওয়ার্কিং কমিটি’ গঠন করা হয়। বিরোধ মেটাতে ব্যবসায়ীদের সংগঠন চট্টগ্রাম চেম্বারস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিও চেষ্টা চালায়। কিন্তু এসব উদ্যোগের কোনোটিই সফল হয়নি। আইভোয়াক ঠিকই আলাদা সিরিয়াল দিয়ে যাচ্ছে।

এই বিষয়ে কমিটির আহ্বায়ক ও নৌ দপ্তর, চট্টগ্রামের প্রিন্সিপাল অফিসার ক্যাপ্টেন সাব্বির মাহমুদ বলেন, ‘আমরা কাজ শুরু করেছি। কিন্তু এখনো তিনটি সংগঠনকে একসঙ্গে আনা সম্ভব হয়নি। তবে সরকারি সিদ্ধান্ত এড়ানোর সুযোগ নেই। আমার আশা, তিনটি সংগঠনকে একসঙ্গে করতে পারব। আশা করছি আইভোয়াকও আসবে।’

ক্যাপ্টেন সাব্বির মাহমুদ আশাবাদী হলেও আইভোয়াক নিজেদের অবস্থানে এখনো অনড়। গত শনিবারও বহির্নোঙরে লাইটার জাহাজের আলাদা সিরিয়াল দিয়েছে তারা। ১৭ জানুয়ারি সব পক্ষের প্রতিনিধিদের নিয়ে চট্টগ্রাম চেম্বার একটি মতবিনিময় সভার আহ্বান করলেও তা বর্জন করেছে আইভোয়াক।

বিরোধ নিরসনে সমন্বিত সিরিয়াল কার্যক্রম চালু করে নৌ-বাণিজ্য দপ্তরের মার্কেন্টাইল মেরিন অফিস (এমএমও)।  সংস্থাটির নেতৃত্বে গঠিত ‘নৌযান সিরিয়াল প্রদানের ওয়ার্কিং কমিটি’ ২২ জানুয়ারি জাহাজের সিরিয়াল কার্যক্রম শুরু করলেও তাতে সাড়া দেয়নি আইভোয়াক।

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে আইভোয়াকের মুখপাত্র পারভেজ আহমেদ গতকাল রোববার বলেন, ‘আমরা এখনো আলাদা সিরিয়াল দিচ্ছি। গত এক মাসে ৯৪৭টি লাইটার জাহাজের সিরিয়াল দিয়েছি। সোমবার (আজ) আইভোয়াকের উদ্যোগে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।’ এ সময় ডব্লিউটিসির কয়েকজন মিলে লুটপাট করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

তবে ডব্লিউটিসির আহ্বায়ক ও ভিসিভোয়াকের সাধারণ সম্পাদক নুরুল হক বলেন, ‘নৌপরিবহন অধিদপ্তর এবং নৌ-বাণিজ্য দপ্তরের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সমন্বিত সিরিয়াল কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আমরা গিয়েছি। কিন্তু আইভোয়াক সরকারি সিদ্ধান্ত মানেনি। তারা এখনো আলাদা সিরিয়াল দিচ্ছে।’

উল্লেখ্য, ডব্লিউটিসির নিয়ন্ত্রণে ছিল মোট ১ হাজার ৩০০টি জাহাজ। এর মধ্যে আইভোয়াক সদস্যের জাহাজ আছে প্রায় ৩০০টি। বিভিন্ন শিল্পকারখানার মালিকদের রয়েছে আরও ৪০০টি লাইটার জাহাজ। বন্দর থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য পরিবহনে প্রতিদিন ৩০ থেকে ৪০টি লাইটার জাহাজ বরাদ্দ দেওয়া হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT