বুধবার, ১০ Jul ২০২৪, ১২:০৬ অপরাহ্ন

        English
শিরোনাম :
চট্টগ্রামস্থ ছাগলনাইয়া সমিতির আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল বিশেষ অভিযানে ৬ গ্যাংয়ের ৩৩ জন আটক, দেশী অস্ত্র উদ্ধার ভালো আছেন খালেদা জিয়া ঈদকে ঘিরে জাল নোট গছিয়ে দিত ওরা কুতুব‌দিয়ায় নতুন জামা পেল ১৩৫ এতিম ছাত্র-ছাত্রী মানিকছড়িতে গণ ইফতার মাহফিল সীতাকুণ্ডে লরি চাপায় পথচারী যুবক নিহত সীতাকুণ্ডে পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু রামগড়ে প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে বিজিবির পুরস্কার ও সনদ বিতরন লাইসেন্স বিহীন ফিলিং স্টেশন স্থাপন করে কার্ভাড ভ্যানে চলছে অবৈধ গ্যাস বিক্রি কাপ্তাই ব্লাড ব্যাংকের উদ্যোগে জনসচেতনতামূলক বিশেষ ক্যাম্পেইন জিম্মি নাবিকদের উদ্ধারে জাহাজের মালিকপক্ষের নতুন ঘোষণা
রসিক নির্বাচন: আলোচনায় তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থী

রসিক নির্বাচন: আলোচনায় তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থী

সিটিজি জার্নাল নিউজঃ মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের শেষ মুহূর্তের প্রচারে জমে উঠেছে রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচন। প্রার্থীদের দম ফেলার ফুরসত নেই। প্রধান তিন দলের মেয়র প্রার্থীদের পাশাপাশি এবার আলোচনায় আছেন সংরক্ষিত নারী আসনের কাউন্সিলর প্রার্থী তৃতীয় লিঙ্গের নাদিরা বেগম। সমাজ সেবক ও প্রতিবাদী হিসেবে আগে থেকে পরিচিতি থাকায় কাউন্সিলর পদে শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বীদের একজন ভাবা হচ্ছে তাকে।

নির্বাচনের প্রচারণার সময়সীমা শেষ হচ্ছে আজ মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) মধ্যরাতে। তাই প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। বসে নেই নাদিরা বেগমও। গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনিও। ভোটাররাও তাকে জয়ী করার আশ্বাস দিচ্ছেন। সিটি করপোরেশনের ১৮, ২০ ও ২২ নম্বর ওয়ার্ড থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ইংরেজিতে স্নাতকোত্তর নাদিরা।

নগরীর লালবাগ রেলগেট এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকেন নাদিরা। এ বাড়ির সামনেই তার নির্বাচনি কার্যালয়। সরেজমিনে সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকালে নাদিরার নির্বাচনি কার্যালয়ে গিয়ে তার সমর্থকদের জটলা দেখা যায়। এরপর সমর্থকদের নিয়ে তিনি আশেপাশের এলাকায় গণসংযোগে বের হন।
নাদিরাকে নিয়ে তার নির্বাচনি ওয়ার্ডের মমতাজ বেগমের সঙ্গে কথা হয় এই প্রতিবেদকের। তিনি বলেন, ‘নাদিরা একজন ভালো মনের মানুষ। তার কাছে বিপদে-আপদে ছুটে গেলে সাহায্য-সহযোগিতা পাওয়া যায়। এলাকার বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেন নাদিরা। তাই যোগ্য প্রার্থী হিসেবে তাকেই সবার ভোট দেওয়া উচিত।’ সালমা বেগম নামে লালবাগ রেলগেট এলাকার এক নারী ভোটার বলেন, ‘নাদিরা সবার সঙ্গেই আপন মানুষের মতো মিশে যান। এটা আমাদের খুব ভালো লাগে। এছাড়া তার কাছ থেকে যে কোনও সময় সহযোগিতা পাওয়া যায়।’

একই এলাকার মনিজা বেগম বলেন, ‘কিছু দিন আগে তার অসুখ হয়। তখন তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায় নাদিরা। তার এ ঋণ কিভাবে ভুলি?’
বাবু খাঁ নামে এক ব্যক্তি জানান, নির্বাচনের অনেক আগে থেকেই তাদের বিপদে-আপদে পাশে এসে দাঁড়ান নাদিরা।
নাদিরা বেগম জানান, এক সময় অনেক প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে দিন কেটেছে তার। তৃতীয় লিঙ্গের মানুষরা সমাজের কাছে এখনও হাস্যরসের বস্তু। ২০১৪ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের স্বীকৃতি দিয়েছেন। এখন তারা অনেক ভালো আছেন।
তিনি আরও জানান, নির্বাচিত হলে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের পুর্নবাসনের ব্যবস্থা করবেন। এলাকা ও এলাকার মানুষের কল্যাণেও কাজ করবেন।

একে/এম

Please Share This Post in Your Social Media

Powered by : Oline IT